Home ফিচারস মিশরে সন্ধান মিলল ফারাও আমলের মমি সমেত ৩০টি কফিনের

মিশরে সন্ধান মিলল ফারাও আমলের মমি সমেত ৩০টি কফিনের

মিশরে মমি সমেত ফারাও আমলের ৩০টি কাঠের কফিনের সন্ধান
(Image: Egypt’s ministry of antiquities, handout, Anadolu Agency)

মিশরের প্রত্নতাত্ত্বিক দপ্তর দেশটির লুক্সর শহরের কাছে খুঁজে পাওয়া আদিযুগের ৩০ টি কাঠের কফিন গত শনিবার সর্বসমক্ষে উন্মোচন করেছে। ভেতরে মমিকৃত দেহ সংবলিত এতগুলো কফিন উদ্ধারের ঘটনাকে গত একশ বছরের মধ্যে দেশটিতে সবচেয়ে বড় প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কার হিসেবে দেখা হচ্ছে।

এছাড়াও এবারই প্রথম কোন বিদেশি সাহায্য ছাড়াই মিশরীয় প্রত্নতত্ত্ববিদদের সম্পূর্ণ তত্ত্বাবধানে এমন অনুসন্ধান কার্যক্রম চালানো হল।

মিশরের প্রত্নতত্ত্ব দপ্তর শনিবার এক বিবৃতিতে জানায়, রঙিন কারুকাজ করা এই ৩০ টি কাঠের তৈরি কফিন লুক্সর শহরে নীলনদের পশ্চিম তীরের আসাসিফ সমাধিক্ষেত্রে খুঁজে পাওয়া যায়।

কফিনগুলো সর্বসমক্ষে উন্মোচনের জন্য লুক্সরে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে মিশরের প্রত্নতত্ত্ব দপ্তরের মন্ত্রী খালেদ এল-এনায় বলেন, “উনবিংশ শতাব্দী শুরুর পর থেকে আজ পর্যন্ত এটিই একসাথে এতগুলো কফিনের সন্ধান পাওয়ার সবচেয়ে বড় ঘটনা।”

কফিনগুলো প্রায় ৩০০০ বছরের পুরনো। উদ্ধারের সময় এগুলোর ঢাকনা বন্ধ ছিল। কফিনগুলোর গাঁয়ে রঙিন ও সূচারু বিভিন্ন ছবি ও নকশা আঁকা ছিল। সময়ের তুলনায় কারুকাজগুলো এখনও বেশ উজ্জ্বল ও স্পষ্ট।

খননকাজে নিয়োজিত মিশরীয় প্রত্নতাত্ত্বিক দলের প্রধান মোস্তফা ওয়াজিরি জানান, কফিনগুলো পুরুষ ও নারী পুরোহিত এবং শিশুদের মরদেহ সংরক্ষণের জন্য নির্মিত হয়েছিল। এগুলো খ্রিষ্টপূর্ব ১০ম শতাব্দীতে ২২তম ফারাও রাজবংশের শাসনামলে তৈরি বলে জানান তিনি।

আসাসিফ কবরস্থানের অধিকাংশ সমাধিই প্রাচীন মিশরীয় সভ্যতার শেষ যুগের (খ্রিষ্টপূর্ব ৬৬৪ – ৩৩২) নিদর্শন। কিছু সমাধি রয়েছে ১৮তম রাজবংশের আমলের (খ্রিষ্টপূর্ব ১৫৫০ – ১২৯২)। এগুলোর মধ্যে আহমোস, হাতসেপতুস, তৃতীয় থাটমোস, তৃতীয় আমেনহোটেপ, আখেনাতোন এবং অবশ্যই তুতেনখামেনের মত বিখ্যাত কয়েকজন ফারাও শাসকের সমাধি রয়েছে।

উদ্ধার, উন্মোচন এবং প্রাথমিক তথ্য সংগ্রহের পর এর পরবর্তী ধাপে এখন কফিনগুলোতে প্রয়োজনীয় সংস্কারকাজ চালানো হবে। সংস্কার শেষে এগুলোকে বিখ্যাত গিজা পিরামিডের অদূরে অবস্থিত ‘গ্র্যান্ড ইজিপ্সিয়ান মিউজিয়াম’-এ আগামী বছর থেকে সর্বসাধারণের প্রদর্শনের জন্য স্থাপন করা হবে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি লুক্সর শহরে উল্লেখযোগ্য আরও দুটি প্রত্নস্থাপনার সন্ধান পেয়েছে মিশরীয় কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে রয়েছে শহরটির পশ্চিম উপত্যকায় অবস্থিত প্রাচীন এক শিল্পাঞ্চলও।

২০১১ সালে মিশরের তৎকালীন শাসক হোসনি মোবারকের বিরুদ্ধে সংঘটিত গণআন্দোলনের সময় থেকেই দেশটিতে রাজনৈতিক অস্থিরতা নিয়মিত বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া পড়েছে দেশটির সম্ভাবনাময় পর্যটন খাতেও।

সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য সাম্প্রতিক এই আবিষ্কারগুলো বড় ভূমিকা রাখবে বলে আশা করছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

গণমাধ্যমের সামনে কফিনগুলোর ঢাকনা খোলার পর ভেতরে যথারীতি পাওয়া যায় আবরণে মোড়ানো মমি :

মিশরে মমি সমেত ফারাও আমলের ৩০টি কাঠের কফিনের সন্ধানমিশরে মমি সমেত ফারাও আমলের ৩০টি কাঠের কফিনের সন্ধান

(Images: Egypt’s ministry of antiquities, handout, Anadolu Agency)