Home বিজ্ঞান বিশ্বে প্রথম কোমল পানীয়ের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করল সিঙ্গাপুর

বিশ্বে প্রথম কোমল পানীয়ের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করল সিঙ্গাপুর

বিশ্বে প্রথম চিনিযুক্ত কোমল পানীয়ের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করল সিঙ্গাপুর
(Image: Reuters)

অভূতপূর্ব এক সিদ্ধান্ত নিল সিঙ্গাপুর। পৃথিবীর প্রথম দেশ হিসেবে ‘চিনিযুক্ত’ কোমল পানীয়ের বিজ্ঞাপনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল দক্ষিণ এশিয়ার এই নগররাষ্ট্রটি। ঐতিহাসিক এই সিদ্ধান্তকে দেশটি বর্ণনা করছে ডায়বেটিসের বিরুদ্ধে তাদের চলমান যুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ এক পদক্ষেপ হিসেবে।

সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য দপ্তরের মন্ত্রী জানিয়েছেন, উচ্চমাত্রার চিনিযুক্ত যেকোনো কোমল পানীয়ই এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে। ক্ষতিকর এইসব পানীয়ের কোনপ্রকার বিজ্ঞাপনই এখন থেকে প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক বা অনলাইন কোন মাধ্যমেই প্রচার করা যাবেনা।

তিনি জানান, এই নিষেধাজ্ঞা জারির পূর্বে জনমত জরিপের মাধ্যমে এই পদক্ষেপের ব্যাপারে সাধারণ মানুষের মতামত নেওয়া হয়েছে।

এক বিবৃতিতে সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য দপ্তর জানিয়েছে, সরকারের এই সিদ্ধান্তের কার্যকারিতা কোমল পানীয় ছাড়াও জুস, দইজাত পানীয় এবং ইনস্ট্যান্ট কফির ওপরেও পড়বে। কারণ সেগুলোতেও ক্ষতিকর মাত্রায় চিনি ব্যবহার করা হয়।

এদিকে বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করা ছাড়াও এসব পণ্যের মোড়কের গায়ে ভিন্ন ভিন্ন রঙে চিনির পরিমান উল্লেখ করাও বাধ্যতামূলক করে দিয়েছে সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য দপ্তর।

দেশটির স্বাস্থ্য দপ্তরের মন্ত্রী বলছিলেন, এই পদক্ষেপ দু’টো সিঙ্গাপুরের ডায়বেটিসের বিরুদ্ধে চলমান লড়াইয়ের প্রথম ধাপ মাত্র। ভবিষ্যৎে তারা এই জাতীয় পণ্যের ওপর কঠোর শুল্ক আরোপ, এমনকি এগুলোকে নিষিদ্ধ করে দেওয়ার কথাও বিবেচনা করে দেখতে পারেন।

ডায়বেটিসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ

মাত্রাতিরিক্ত চিনি বা চিনিযুক্ত খাবার গ্রহণে স্থূলতা ছাড়াও হৃদরোগ ও ডায়বেটিসের মত দীর্ঘমেয়াদী রোগের ঝুঁকি তৈরি হয়। ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’-র তথ্যমতে, যারা প্রতিদিন চিনিযুক্ত কোমল পানীয়ের একটি বা দুটি ক্যান বা ছোট বোতল পান করেন তাদের টাইপ-২ ক্যাটাগরির ডায়বেটিস হওয়ার ঝুঁকি, যারা মাঝেমধ্যে এসব পান করে তাদের তুলনায় ২৬ শতাংশ বেশি থাকে।

আরও জানা গেছে, বিশ্বে স্থূলতার সমস্যা ১৯৭৫ সালের চেয়ে এখন প্রায় তিনগুণ বেশি হিসেবে পর্যালোচিত হচ্ছে।

বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী রাষ্ট্র সিঙ্গাপুরে স্থূলতার সমস্যা বর্তমানে বেশ গুরুতর। নব্বইয়ের দশক থেকে এই সমস্যা সেখানে ক্রমেই বেড়ে চলেছে।

এছাড়া ডায়বেটিসের প্রকোপও দেশটিতে উদ্বেগজনক পর্যায়ে রয়েছে। ‘আন্তর্জাতিক ডায়বেটিস ফাউন্ডেশন’-র তথ্যমতে, ২০১৭ সালে সিঙ্গাপুরের প্রতি ৭ জনের মধ্যে ১ জন নাগরিক ডায়বেটিসে আক্রান্ত ছিলেন।

চিনিযুক্ত কোমল পানীয়ের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে গত বছর জনমত জরিপের মাধ্যমে এ ব্যাপারে সিঙ্গাপুরের নাগরিকদের মতামত চাওয়া হয়। জরিপের ৭০ শতাংশ অংশগ্রহণকারীই বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধের প্রস্তাবকে যথাযথ হিসেবে সমর্থন করেন।

সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য দপ্তর পানীয় নির্মাতা সংস্থাগুলোকে আহবান জানিয়েছে, গবেষণার মাধ্যমে সুস্বাদু কিন্তু স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয় এমন পানীয় উদ্ভাবনের ব্যাপারে উদ্যোগী হওয়ার।

এদিকে বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধে সিঙ্গাপুর সরকারের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে কোকাকোলার সিঙ্গাপুর শাখা এক বিবৃতিতে বলেছে, “এই পদক্ষেপ ভোক্তাদের কম চিনি গ্রহণে সাহায্য করবে। কারণ এসব পানীয় মাত্রাতিরিক্ত গ্রহণ কারো জন্যই ভাল নয়।”

তারা আরও জানিয়েছে, “কোকাকোলা কম চিনিযুক্ত এবং একেবারে চিনিমুক্ত কোমল পানীয় প্রস্তুতে কাজ করছে।”