হোমপেজ ফিচারস বতসোয়ানার খনিতে মিলল পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম হীরা

বতসোয়ানার খনিতে মিলল পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম হীরা

(Image: Facebook, Debswana Diamond Company)

আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলীয় রাষ্ট্র বতসোয়ানায় প্রকান্ড এক হীরার খন্ডের সন্ধান পাওয়া গেছে যেটি আকারে পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম হীরা।

১০৯৮ ক্যারট ওজনের হীরাটি দু’সপ্তাহ আগে বতসোয়ানার এক খনি থেকে উত্তোলন করা হয়। হীরাটি দেশটির প্রেসিডেন্ট মোগওয়েতসি মাসিসিকে দেখানো হয়েছে।

২০১৫ সালে এই বতসোয়ানাতেই বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম হীরার সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল। এবারের হীরাটি সেটির চেয়ে সামান্যই ছোট।

আফ্রিকা মহাদেশে সবচেয়ে বেশি হীরা উত্তোলিত হয় বতসোয়ানার খনিগুলোতেই।

তৃতীয় বৃহত্তম হীরাটি উত্তোলন করেছে ডেবসোয়ানা ডায়মন্ড কোম্পানি নামের একটি সংস্থা। এর এক নির্বাহী কর্তা বলছিলেন, আমাদের সংস্থার পাচ দশকেরও বেশি সময়ের ইতিহাসে এটিই সবচেয়ে বড় হীরার সন্ধান পাওয়ার ঘটনা। আমরা গবেষকদের দিয়ে পরীক্ষা করিয়ে নিশ্চিত হয়েছি যে এটিই বিশ্বের তৃতীয় সর্ববৃহৎ রত্ন জাতীয় পাথর।

ডেবসোয়ানা হল হীরাকেন্দ্রিক আন্তর্জাতিক কোম্পানি ‘ডে বিয়ার্স’ ও বতসোয়ানার সরকারের যৌথ মালিকানাধীন একটি প্রতিষ্ঠান।

নতুন আবিষ্কৃত হীরাটির আনুমানিক মূল্য এখনও প্রকাশ করা হয়নি। ২০১৫ সালে পাওয়া দ্বিতীয় বৃহত্তম হীরাটি ২০১৭ সালে বিক্রি হয়েছিল ৫৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে।

ইতিহাসের সবচেয়ে বড় হীরাটির সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকায় ১৯০৫ সালে। হীরাটির নাম রাখা হয়েছিল কুল্লিনান। হীরাটি যে খনিতে আবিষ্কৃত হয়েছিল, তার মালিক থমাস কুল্লিনানের নামানুসারে হীরাটির এই নামকরণ করা হয়েছিল। আর দ্বিতীয় বৃহত্তম হীরাটির নাম ছিল লেসেডি লা রোনা, স্থানীয় ভাষায় যার অর্থ ‘আমাদের আলো’। সর্বশেষ সন্ধান পাওয়া তৃতীয় বৃহত্তম হীরাটির এখনও নামকরণ করা হয়নি।

এদিকে এত বড় আবিষ্কারের পর স্বভাবতই উচ্ছ্বসিত বতসোনিয়ার সরকার। দেশটি হীরার বিশ্ববাজারের সবচেয়ে বড় যোগানদাতা হলেও চলমান করোনা সংকটের কারণে গত দু’বছর ধরে অন্যান্য খাতের মত বতসোনিয়ার হীরা শিল্পেও ধস নামে। খোজ পাওয়া নতুন এই বিশাল হীরাটির হাত ধরে আন্তর্জাতিক ক্রেতারা আবারও দেশটির হীরার বাজারে ফিরে আসবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন বতসোয়ানার খনিজ সম্পদ মন্ত্রী লেফোকো মোয়াগি।