হোমপেজ ফিচারস ইসরায়েলে পাওয়া গেল হাজার বছরের পুরনো স্বর্ণমুদ্রা ভরা পাত্র

ইসরায়েলে পাওয়া গেল হাজার বছরের পুরনো স্বর্ণমুদ্রা ভরা পাত্র

ইসরায়েলে মাটির নীচে খুঁজে পাওয়া ১,১০০ বছরের পুরনো স্বর্ণমুদ্রা। পাশে মুদ্রা ভরা ততোধিক পুরনো সেই ভাঙা পাত্রটিও দেখা যাচ্ছে যার ভেতরে রাখা ছিল স্বর্ণমুদ্রাগুলো (Image: Israel Antiquities Authority, Reuters)

প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের অনুসন্ধান চালাতে গিয়ে অতিপ্রাচীন কালের বিপুল পরিমান স্বর্ণমুদ্রার খোঁজ পেল ইসরায়েলের একদল তরুণ স্বেচ্ছাসেবক। মোট ৪২৫টি স্বর্ণমুদ্রা পাওয়া যায় স্থানটিতে, যেগুলো একটি মাটির পাত্রে রাখা ছিল। মুদ্রাগুলোর সবমিলিয়ে ওজন প্রায় ৮৪৫ গ্রাম।

আবিষ্কৃত মুদ্রাগুলো পরীক্ষা করে দেখা গেছে, এগুলো প্রায় ১,১০০ বছরের পুরনো এবং প্রাচীন ইসলামিক আমলের। সেসময় ঐ অঞ্চল আব্বাসিদ খিলাফতের অধীনে ছিল।

প্রত্নতত্ত্ববিদরা জানিয়েছেন, এই পরিমান স্বর্ণমুদ্রার যা মূল্যমান, তা দিয়ে সেসময় ঐ খিলাফতের অন্তর্গত কোন শহরে বিলাসবহুল গোটা একটি বাড়ি কিনে ফেলা যেত।

ইসরায়েলের প্রত্নতত্ত্ব দপ্তর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, যে বা যারা এই পাত্রভর্তি স্বর্ণমুদ্রাগুলোর মালিক ছিলেন, তারা কোন অজ্ঞাত কারণে এটিকে মাটির নীচে পুঁতে রেখেছিলেন। পরবর্তীতে সুবিধাজনক সময়ে এগুলোকে আবার তুলে নেয়ার পরিকল্পনা তাদের ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। মুদ্রা ভরা পাত্রটি যাতে নির্দিষ্ট ঐ স্থান থেকে সরে না যায় তার জন্য সেটিকে পেরেক দিয়ে মাটির সাথে আটকেও রাখা হয়েছিল।

বিবৃতিতে বলা হয়, এত প্রাচীন কালের স্বর্ণমুদ্রা, তাও আবার এত বেশি সংখ্যায় আবিষ্কৃত হওয়াটা খুবই বিরল। কারণ এগুলো সব যুগেই মূল্যবান হওয়ায় কেউই এগুলোকে সংরক্ষণ করে রাখতনা, বরং বিক্রি করে বিপুল অর্থের মালিক হত অথবা গলিয়ে অন্য কিছুতে রূপান্তর করত।

তরুণ স্বেচ্ছাসেবী অনুসন্ধানকারী দলের যে সদস্য মুদ্রাগুলো খুঁজে পান তিনি জানান, “আমি অল্প অল্প করে মাটি খুঁড়ছিলাম আর হঠাৎ করেই দেখতে পাই চিকন পাতার মত কিছু জিনিস। তারপর সেগুলোর দিকে ভাল করে তাকিয়ে দেখি সেগুলো সোনার তৈরি মুদ্রা।“

মুদ্রাগুলো পরীক্ষা করা একজন বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন, পাত্রে থাকা স্বর্ণমুদ্রাগুলোর মধ্যে পূর্ণাঙ্গ আকারের দিনারের (আরবে মুদ্রার স্থানীয় নাম) পাশাপাশি ২৭০ টি তুলনামূলক ছোট আকৃতির মুদ্রাও রয়েছে। ঐ আমলে খুচরা মূল্যের সুবিধার্থে বড় স্বর্ণমুদ্রা কেটে এধরনের ছোট ছোট মুদ্রা বানানোর প্রচলন ছিল।

তিনি আরও জানান, আবিষ্কৃত মুদ্রাগুলোর মধ্যে বাইজানটাইন সম্রাট থিওফিলোসের প্রতিকৃতি সংবলিত মুদ্রাও রয়েছে, যা গ্রীসের কন্সটান্টিপোলে খোদিত। এথেকে প্রমাণ পাওয়া যায়, সেসময় দুই প্রতিদ্বন্দী সাম্রাজ্যের মধ্যে আর্থিক যোগাযোগ বিদ্যমান ছিল।